ঘুমানোর জায়গার জন্য অমিতকে খুন করি !

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের ৩২ নম্বর সেলে বন্দি থাকা অবস্থায় শীর্ষ সন্ত্রাসী অমিত মুহুরী খুন হওয়ার  ঘটনায় রিমান্ডে থাকা আসামি রিপন নাথ বারবার একই তথ্য দিচ্ছেন। সূত্র জানায়, পাঁচ দিনের রিমান্ডে থাকা এই আসামি জিজ্ঞাসাবাদে বলেছেন, অমিত মুহুরী যে চট্টগ্রামের শীর্ষ সন্ত্রাসী এটা তিনি জানতেন না। সেলের ভেতরে তিনটি বিছানার জায়গা থাকা সত্ত্বেও অমিত তাঁর পায়ের পাশের দুই ফুটের মতো জায়গায় তাঁকে ঘুমাতে বলার কারণেই দুজনের মধ্যে বিতণ্ডা হয়। আর তাই রাতে অমিত মুহুরী ঘুমিয়ে পড়লে তাঁর মাথা ইটের আঘাতে থেঁতলে দেন তিনি।

গতকাল শনিবার জিজ্ঞাসাবাদের তৃতীয় দিনে তদন্তকারী কর্মকর্তাদের সামনে এসব কথা বলেছেন রিপন। তাঁর দাবি, অমিত মুহুরীকে ব্যক্তিগতভাবে চিনতেন না তিনি। ২৯ মে তাঁকে ৩২ নম্বর সেলের ৬ নম্বর কক্ষে নেওয়া হয়। তিনি দেখেন, সেলের ভেতরে তিনটি বিছানা আছে। কারা সেলে কম্বল বিছিয়ে ঘুমায় বন্দিরা। সেলে আগে থেকে দুজন বন্দি আছে। তিনিসহ তিনজন হলেন। রিপন নাথ জানান, কিন্তু সেলে প্রবেশের পর অমিত মুহুরী তাঁকে তিনটি বিছানার বাইরে ফ্লোরে অবশিষ্ট থাকা দুই ফুটের মতো জায়গায় ঘুমাতে বলেন, যা অন্য দুই বন্দির পায়ের কাছে ঘুমানোর মতো। এই নিয়ে অমিতের তর্ক শুরু হয় রিপন নাথের। এই সময় সেলের তৃতীয় বন্দি বেলাল ‘জিতো’ ‘জিতো’ শব্দ করেন। এতে রিপন নাথ মনে করেন, তর্কে জয়ী হওয়ার জন্যই ‘জিতো’ শব্দ উচ্চারণ করেছেন বেলাল। এই বন্দি বেলাল মা-সন্তান খুনের ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলার আসামি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *